1. info@www.dailynewsbmuj.com : বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ইউনিয়ন :
বুধবার, ১২ জুন ২০২৪, ১১:৫৮ অপরাহ্ন
সর্বশেষ :
সেনাপ্রধানের নিয়োগ পেয়েছেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান ময়মনসিংহের কোতোয়ালী পুলিশের অভিযানে বিদেশী পিস্তলসহ জজ মিয়া গ্রেফতার জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম এর ১২৫তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন ময়মনসিংহের চরকালিবাড়িতে আলতাব হত্যাকান্ডের মুলহোতা রাসেল অস্ত্রসহ গ্রেফতার কােতায়ালী পুলিশের অভিযানে বিভিন্ন অপরাধ ও পরোয়ানাভুক্ত সহ গ্রেফতার-১০ ত্রিশালে ট্রিপল মার্ডারের মূল হত্যাকারী গ্রেফতার স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি প্রদান পেট্রোল পাম্পে নো হেলমেট, নো ফুয়েল কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে ময়মনসিংহে মালিকদের সাথে মতবিনিময় সভা ময়মনসিংহ সদর উপজেলা নির্বাচনে ভোটারদের মধ্যে চলছে জয় পরাজয়ের হিসাব নিকাশ কিশোরগঞ্জে সাংবাদিকের ওপর হামলার নেপথ্যে পাসপোর্ট অফিসের কর্তা ময়মনসিংহের ফুলপুরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে হত্যা; গ্রেপ্তার-৩

ঐতিহ্যবাহী খান পরিবারে জন্ম নেয়া মাইনুল হোসেন খান নিখিলের জিবনের সিংহভাগ কেটেছে মিরপুরে

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
  • প্রকাশিত: রবিবার, ৮ অক্টোবর, ২০২৩
  • ৩৮৮ বার পড়া হয়েছে
চাঁদপুরের কৃতি সন্তান আলহাজ্ব  মো: মাইনুল হোসেন খান নিখিল।  ঐতিহ্যবাহী খান পরিবারে জন্ম নেয়া নিখিল ভাইয়ের জিবনের সিংহভাগ কেটেছে  মিরপুরে ।
আলহাজ্ব মোঃ মাইনুল হোসেন খান নিখিল এর জন্ম ১৯৬৪ সালের ২৭ জুন চাঁদপুরের মতলব উপজেলার  ৫ নং দুর্গাপুর ইউনিয়নের নিশ্চিন্তপুর গ্রামের ঐতিহ্যবাহী খান পরিবারে. বাবা প্রয়াত হাজী মোঃ মোফাজ্জল হোসেন খান। পেশায় ছিলেন সরকারি চাকরিজীবী।
তিনি স্বরাস্ট্র মন্ত্রণালয়ে কর্মরত ছিলেন। চাকরি থেকে অবসর নিয়ে তিনি  আওয়ামী রাজনীতিতে সরাসরি অংশ গ্রহন করে  চাঁদপুর জেলা অর্ন্তগত ৫নং  দুর্গাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং মতলব-উত্তর থানা আওয়ামীলীগ -এর সহ সভাপতি নির্বাচিত হয়ে সততার ও নিষ্ঠার সাথে তৃনমূলের প্রতিটি ইউনিটের কর্মীদেরকে সুসংগঠিত করেন ।
মাাতা প্রয়াত হামিদা বেগম। পাঁচ ভাই ও সাত বোনের মধ্যে উনার অবস্থান অষ্টম।  আওয়ামী পরিবারের সন্তানের মধ্যে  মেঝ ভাই প্রয়াত মুনসুর হোসেন খান বাবুল বেলজিয়াম আওয়ামীলীগ -এর সহ সভাপতি ছিলেন । বাকীরা  আওয়ামী রাজনীতির সাথে যুক্ত।
বড় ভাই  বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হক খান টগর , ছোট ভাই মোতাহার হোসেন  খান সুফল , ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের সহ সম্পাদক , মতলব  উত্তর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান, মোকারম হোসেন খান ওপেল ,  মতলব উত্তর উপজেলা ০৫ নং দূর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান।
আলহাজ্ব মো: মাইনুল হোসেন খান নিখিল নিশ্চিন্তপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে তিনি ১৯৭৯ সালে মাধ্যমিক পাশ করেন।
১৯৮২ সালে কালিয়াকৈর কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক সম্পন্ন করেন। পরবর্তিতে বগুড়ার শাহ সুলতান কলেজ থেকে তিনি ১৯৮৫ সালে স্নাতক সম্পন্ন করেন।
১৯৯৭  সালে মমতাজ আহমেদকে বিয়ে করেন। তাদের দুই ছেলে। বড় ছেলে মাসরুর হোসেন খান নাবিল একটি বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র,   ছাত্রলীগ ঢাকা মহানগর উত্তরের ছাত্রবৃত্তি বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। ছোট ছেলে মুসারাত হোসেন খান (নাহিদ) উচ্চ মাধ্যমিক কলেজে পড়াশুনা করেন।
পেশাগত জীবনে মোঃ মাইনুল হোসেন খান নিখিল একজন ব্যবসায়ী। দীর্ঘ সময় ধরে তিনি যুক্ত আছেন ঠিকাদারি ব্যবসার সঙ্গে।মেসার্স খান ট্রেডার্স তার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। এছাড়াও তিনি আবাসন কোম্পানি নাবিল প্রপার্টিজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও নাবিল প্যাকেজিং ও প্রিন্টিং ইন্ডাস্ট্রিজ-এর কর্নধার তিনি।
পেশাগত ও রাজনৈতিক জীবনের বাইরে মাইনুল হোসেন খান নিখিল একজন সমাজসেবক। একজন শিক্ষানুরাগী হিসেবে তার ভূমিকা সুবিদিত। যে স্কুলে তার পড়াশোনার হাতেখড়ি বর্তমানে তিনি সেই নিশ্চিন্তপুর উচ্চবিদ্যালয় ও নিশ্চিন্তপুর ডিগ্রী কলেজের গভনিং বডির সভাপতি।
এছাড়াও ধর্মানুরাগী ব্যক্তি হিসেবে তিনি খান বাড়ী বায়তুল ফালাহ্ জামে মসজিদ কমিটির সভাপতি , পশ্চিম মনিপুরের বাইতুল আমান জামে মসজিদ ও বাইতুল মা’মুর জামে মসজিদ, মধ্য মনিপুরের দারুল কোরআন এতিমখানা ও মাদ্রাসা, দক্ষিণ মনিপুরের বাইতুল আশরাফ জামে মসজিদ, পূর্ব মনিপুরের বাইতুল রব জামে মসজিদ এবং পশ্চিম কাজিপাড়ার বাইতুল আহসান জামে মসজিদ ও মাদরাসার উপদেষ্টা। প্রথমে ২০১১সালে ও চলতি বছর তিনি ওমরাহ করেন। ২০১২ সালে তিনি হজ্ব পালন করেন। ২০১০ সালে জাতি সংঘের সাধারন অধিবেশনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী  শেখ হাসিনা’র সফর সঙ্গী হন।
২০১৪ সালে ওমরাহ হজ্ব পালন করেন।
আওয়ামী পরিবারের সন্তান প্রিয়   নিখিল ভাই ১৯৮০ সালের দিকে লালবাগ থানা ছাত্রলীগের কর্মী  ছিলেন। ১৯৮৭ সালে যোগ দেন যুবলীগে। তৎকালীন ৯ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের একটি আহ্বায়ক কমিটি ছিল। ওই আহ্বায়ক কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক ছিলেন। ১৯৯৪ সালে ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হয়। ২০০৩  সালের দিকে ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হয়। ২০১২ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ষষ্ঠ সম্মেলনের মাধ্যমে উনাকে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়।
২০১৯ সালে তিনি ৭ ম কংগ্রেস মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ এর সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হন । দায়িত্ব পাওয়ার সাথে সাথে  তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র নির্দেশে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগকে একটি  মেধা সম্পূর্ন মানবিক যুবলীগ হিসেবে বিশ্বের দরবারে প্রতিষ্ঠিত করেন । আমি ওনার সুস্বাস্হ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করছি । ঢাকা-১৪ আসনের গনমানুষের সেবক হিসেবে মহান রাব্বুল আলামিন যেন কবুল করেন। আমিন।
লেখকঃ মোঃ মুক্তার হোসেন চৌধুরী কামাল , কার্যনির্বাহী সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: বাংলাদেশ হোস্টিং